Friday, 3 January 2014

#মুসলিম_উম্মাহর_বিভেদ_ও_ঐক্য : পর্ব ১

আসসালামু আলাইকুম...আশা করি আল্লাহ্‌র রহমতে সকলেই ভালো আছেন, বর্তমান পরিস্থিতির আলোকে অবশ্যই...!

আজ থেকে "মুসলিম উম্মাহর বিভেদ ও ঐক্য" শিরোনামে একটা ধারাবাহিক লেখা ইনশাল্লাহ লেখে যাবার চেষ্টা করবো...বাকীটা আল্লাহ্‌ তায়ালার ইচ্ছা...আপনাদের যেকোনো সংযোজন-বিয়োজনের ও গঠনমূলক পরামর্শ একান্তুই কাম্য...।

#মুসলিম_উম্মাহর_বিভেদ_ও_ঐক্য : পর্ব ১

ভূমিকা : ইসলাম হচ্ছে ঐক্যের এক সুমহান আদর্শ। মানব জীবনের অবশ্যম্ভাবী সকল বিরোধ ও বিভেদের সমাপ্তি ঘটিয়ে নিজেদের মধ্যে একটি সীসাঢালা প্রাচীরের মতোই অটুট ঐক্য প্রতিষ্ঠা করতেই এই মহান আদর্শের আগমন। মহান আল্লাহ্‌ রাব্বুল আলামীন যুগে যুগে নবী রাসুল পাঠিয়ে এই ঐক্য গড়াকে আরও সুনিশ্চিত করেছেন। সকল যুগের যাবতীয় চিন্তাধারা ও মতাদর্শের চির সমাপ্তি ঘটিয়ে ইসলামী আদর্শকে জয়যুক্ত করেছেন এবং এই ব্যবস্থার মাধ্যমেই বিশ্ব মানবতার অস্তিত্ব বহাল রয়েছে আজ শতাব্দীর পর শতাব্দী...।

এখন কথা হচ্ছে, আমাদের মাঝে শেষ নবী মোহাম্মদ (সাঃ) এর আগমনের পরে আর কোন নবী-রাসুলের আগমন হবেনা কখনোই, যতোই বিশ্বজুড়ে নতুন করে আরও বিরোধ আর বিভেদই মাথা তুলে দাঁড়াক না কেন! সুতরাং এখানে এটি স্পষ্ট যে উদ্ভুত যাবতীয় বিরোধ আর বিভেদ গুলো নিস্পত্তি করার জন্য আমাদের নিজেদেরকেই চেষ্টা করতে হবে, এটি অত্যন্ত জরুরীও বটে, কেননা এই ঐক্য প্রতিষ্ঠার মাঝেই রয়েছে উম্মতে মোহাম্মদীর ভবিষ্যতে চির স্থায়িত্বের চাবিকাঠি! আর তাই উম্মতে মোহাম্মদীর ইতিহাসে দেখা যায় যে, এই ঐক্য প্রতিষ্ঠার পিছনে যুগে যুগে বিভিন্ন মহান ব্যক্তি কিংবা সংগঠন বিশেষের অক্লান্ত পরিশ্রমই সর্বদা ভূমিকা রেখেছে। কোরআন আর হাদিসের বিশেষ কষ্টিপাথরে যাচাই বাছাই করে ইসলামের অবিকৃত আদর্শ কে সমুন্নত রাখা এদের কারণেই সম্ভব হয়েছে। আর এতে ধীরে ধীরে বাতিলের যতো অপশক্তির দাপট স্তিমিত হয়ে গেছে এবং এই অমোঘ ব্যবস্থার মাধ্যমেই আমাদের মাঝে অবিকৃত ইসলামী আদর্শ বিদ্যমান রয়েছে।

আজ থেকে প্রায় দেড় সহস্র বছর পূর্বে আরবের সেই ধূসর মরুভূমি অঞ্চলের এক বেদুঈন অধ্যুষিত পরিবেশে উম্মতে মোহাম্মদীর ঐতিহাসিক যাত্রা শুরু হয়েছিলো, যেখানে প্রথম দিকে সমাজের গুটিকয়েক দূর্বল শ্রেণীর মানুষেরাই ছিলেন এই উম্মতের সদস্য। বিভিন্ন রকমের ঘাত-প্রতিঘাতের দূর্বোধ্য অপ্রতিকূল পরিবেশের অনতিক্রম পাহাড় ডিঙ্গিয়ে এই মানবতার মহান মুক্তিদূত রাসুল (সাঃ) এর আমলেই লক্ষাধিক আদম সন্তান ইসলামী উম্মাহর আবহনকালের ঐক্য স্রোতের সাথে একাত্ম হয়ে পড়েন। আদর্শের ঐ অকৃত্রিম মূল শক্তি, এই আদর্শের ধারক-বাহকদের সুদৃঢ় ঈমান ও বিশ্বাস এবং তাঁদের পরম নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার ফলে এই মহান আদর্শ বিশ্বের দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়তে বেশী দেরী হয়নি, বরং অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই বিশ্বের বিস্তীর্ন এলাকার বিশাল জনগোষ্ঠী এই উম্মাহর ঐক্য সূত্রে গ্রোথিত হয়ে যান। আর বলা বাহুল্য যে, সেই যাত্রা আজো অব্যাহত রয়েছে!

আজকের বিশ্বের প্রায় ৭০০ কোটি জনশক্তির মধ্যে প্রায় ১৯০ কোটিরও বেশী মানব সন্তান এই ইসলামী উম্মাহর সদস্য। আজ থেকে প্রায় ৬৩ বছর পূর্বে অবিভক্ত ভারতের সরকারী আদম শুমারীতে মুসলমানের সংখ্যা ছিলো যেখানে ৬ কোটি, সেখানে আজকে এই উপমহাদেশের তিন তিনটি স্বাধীন দেশে এই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে রীতিমতো পঞ্চাশ কোটিরও বেশী! সারা বিশ্বের মুসলমান, বিশেষ করে এই উপমহাদেশের মুসলমানগণ সংখ্যার দিক দিয়ে এই বিশালতার অধিকারী হওয়া সত্বেও অপরিহার্য আদর্শিক ঐক্যের অভাবেই নিতান্তই হীনশক্তিই বলেই হৃদয় মাঝে অনুভূত হয়...!

মনে রাখতে হবে প্রথমেই যে, একমাত্র আদর্শিক ঐক্যই ইসলামের বুনিয়াদ, এই ঐক্যের অভাবেই মুসলিম উম্মাহ আজ এতোটা জরাগ্রস্থ আর বিভক্ত। আর এই ঐক্যের রাজপথ যতোটা সহজ সরল, যতোটা জটিলতা মুক্ত, ততোটাই একে জটিল করেছে বিভিন্ন সময়ে সৃষ্ট বিভেদের মহামারী ভাইরাস, বিভেদের চোরাপথে বারবার একে আঘাত করে গেছে যতোসব অনৈক্যের আর বিভেদের ঝড়! যতদিন একে আমরা নিজেরাই ত্যাগ না করে ফিরে আসতে পারবো হকের পথে, ততদিন আমাদের কে বারবার ঐ অনৈসলামিক শক্তিরা পরাজিত করেই যাবে...!

তাহলে এ থেকে পরিত্রান কি নেই কোনমতেই...! না...আছে, আর তা আছে আমাদের প্রাণাধিক প্রিয় এবং যুগে যুগে যে কিতাব আমাদেরকে চির সত্যের পথে আহ্বান করে এসেছে সেই মহা গ্রন্থ আল-কোরআনেই...!

সূরা আনফালের ৪৬ নং আয়াতে আল্লাহ্‌ তায়ালা স্পষ্টই বলেছেন যে, "আনুগত্য করো আল্লাহ্‌র ও তার রাসুলের (সাঃ)।
কলহে লিপ্ত হয়োনা, তা হলে তোমরা ব্যর্থ হয়ে যাবে, তোমাদের শক্তি-সামর্থ চলে যাবে এবং তোমরা এই পথে ধৈর্য ধারন করবে। আল্লাহ্‌ সবরকারীদের সাথেই আছেন।"

সুতরাং এখন আমাদেরকেই বুঝতে হবে আমাদের কি করনীয়...! সময় এখন পুরনো যাবতীয় বিভেদ ভুলে গিয়ে পরাজিত ঐ বাতিল শক্তির বিরুদ্ধে সীসাঢালা প্রাচীরের ন্যায় ঐক্য গড়ে তুলে জিহাদের ময়দানে ঝাঁপিয়ে পড়বার...!

মহান আল্লাহ্‌ আমাদের সবাইকেই তার দ্বীনের পথেই কবুল করুন...!

#জুনাইদ

No comments:

Post a Comment